Bangladeshi News Papers
Log in

I forgot my password

Social bookmarking

Social bookmarking Digg  Social bookmarking Delicious  Social bookmarking Reddit  Social bookmarking Stumbleupon  Social bookmarking Slashdot  Social bookmarking Yahoo  Social bookmarking Google  Social bookmarking Blinklist  Social bookmarking Blogmarks  Social bookmarking Technorati  

Bookmark and share the address of www.twitter.findtalk.biz on your social bookmarking website

Bookmark and share the address of Bangladeshi News Papers on your social bookmarking website

More
Latest topics
» Bangladeshi Actress
Mon May 16, 2011 11:10 am by Admin

» Diabetes tips-Keeping Blood Sugar Low
Sat Dec 25, 2010 1:49 pm by Admin

» Bangla Choti Online-টিনা মাই বেষ্ট ফ্রেন্ড
Sun Nov 21, 2010 2:31 pm by windows-xp

» blood sugar levels
Sun Nov 21, 2010 1:42 pm by Admin

» wordpress Seo Tips
Tue Nov 16, 2010 11:03 am by Admin

» Make Money with google adsense
Fri Nov 12, 2010 5:41 pm by windows-xp

» Michael Jackson Bio data Full information
Sat Sep 25, 2010 9:51 pm by Admin

» Romantic Love Story of lisa
Sat Sep 25, 2010 11:57 am by Admin

» Love Story of Holly
Sat Sep 25, 2010 11:07 am by Admin

sponser
Affiliate Banner

Bangladeshi Sexy and Hot Story of Girl Part 7

View previous topic View next topic Go down

Bangladeshi Sexy and Hot Story of Girl Part 7

Post  windows-xp on Sun Feb 07, 2010 8:50 pm

মামা, এখন আমি আপনাদের যে ঘটনা বলব তা আমার জীবনের সবচেয়ে রোমাঞ্চকর ঘটনা। অনেক মেয়ের সাথে আমি সেক্স করছি কিন্তু এত রোমাঞ্চিত আমি কিছুতেই হই নাই। যাই হোক, এখন আসল ঘটনায় আসি।

ঘটনাটা দুই বছর আগের। তখন আমি ইউনাইটেড ইন্টারন্যশনাল ইউনিভারসিটিতে বিবিএ প্রথম বর্ষে পড়ি। বাসা মোহাম্মদপুর তাজমহল রোডে। একটা কাজে মতিঝিল গেছিলাম। ফেরার সময় মেগাসিটি বাসে উঠলাম। পুরা বাস খালিই ছিল। আমি সামনের দরজা দিয়ে উঠেই ডান পাশে যে সিঙ্গেল সিট, সেটায় বসলাম। শাহ্*বাগ পর্যন্ত আসতেই বাস ভরে গেল। তখন মে মাস। রাস্তায় প্রচন্ড জ্যাম তার উপর ঘাড়ের উপর লোকজন দাঁড়ায় আছে। গরমে আমার অবস্থা কাহিল। প্রচন্ড বিরক্ত লাগছিল। এর মধ্যে বাস সিটি কলেজ এসে থামল। সামনে থেকে কিছু লোক নেমে সামনের দিকটা হালকা হল। এই স্টপেজ থেকে তিন চার জন যাত্রী উঠল। এদের মধ্যে একজন মেয়ে। পরনে সাদা সালোয়ার-কামিজ, মাথায় সাদা ওড়না। পোশাক দেখে মনে হয় সিটি কলেজের ছাত্রী। আমার দিকটা ভিড় কম হওয়ায় মেয়েটা আমার পাশে এসে ডানহাতে আমার সিটের সামনের বাঁকা রেলিংটা আর বামহাতে আমার পেছনের খাঁড়া পাইপটা ধরে দাঁড়াল। এভাবে দাঁড়ানোতে আমি সবার চোখে মেয়েটার আঁড়ালে ঢাকা পরলাম। আমি মেয়েটাকে দেখলাম। ফর্সা, একটু নাদুস-নুদুস কিন্তু খুব মোটা না, জোড়া ভুরু, চেহারা মোটামুটি, মাথায় ওড়না দেখে বোঝা যায় যে মেয়েটা বেশ ভদ্র। গরমে আর সারাদিন ক্লাস করার জন্য বোধহয় মেয়েটার চেহারায় ক্লান্তির ছাপ। আমি বাম হাতে সামনের রেলিং এর যেখানটা মেয়েটা ধরে রেখেছে তার বাম পাশটা ধরা আর ডান হাতটা আমার ডান উরুর উপর রাখা। বাসের ঝাঁকুনিতে আমার ডান হাতটা বারবার মেয়েটার উরু স্পর্শ করতে লাগল। মামারা কি আর বলব, পুরুষ মানুষ তো তাই ধোনটা খাড়ায় গেল। আমি এতটা উত্তেজিত হয়ে পড়লাম যে আমার মাথা ঝিমঝিম করতে লাগল। আমি এবার হাতটা একটু উঁচু করে এমন ভাবে রাখলাম যে ঝাঁকির তালেতালে হাতটা মেয়েটার উরুর উপরের অংশে ভিতরের দিকে স্পর্শ করতে লাগল। এদিকে আমার অবস্থা খারাপ কিন্তু মেয়েটার কোন বিকার নাই। মেয়েটা বুঝতে পারতেছে না যে কাজটা আমি ইচ্ছা করে করতেছি। আমার সাহস বেড়ে গেল। বড় একটা ঝঁকুনির সুযোগে সালোয়ারের উপর দিয়ে আমি মেয়েটার নুনু স্পর্শ করলাম। মেয়েটা চমকে উঠে লাফ দিয়ে পেছনে সরে গেল। কি বলব মামা, আমার মনে হল যে নরম তুলতুলে গরম একতাল মাখন স্পর্শ করলাম। সম্ভবত মেয়েটা সালোয়ারের নিচে প্যান্টি পরে নাই। একটা মেয়ের নুনু যে এতটা ফুলোফুলো হবে তা কখনও কল্পনাও করি নাই। আমি যে কাজটা ইচ্ছা করে করছি তা বোধহয় মেয়েটা টের পায় নাই। কিছুক্ষন পর মেয়েটা স্বাভাবিক হয়ে এল। আবারও মেয়েটার নুনুতে হাত দিলাম। এবারও মেয়েটা ছিটকে সরে গেল। এবার বোধহয় মেয়েটা বুঝতে পারছে যে এসব আমি ইচ্ছা করে করতেছি। এবার আর সহজে সোজা হয়ে দাড়ায় না। কিন্তু কতক্ষন আর বাঁকা হয়ে দাঁড়িয়ে থাকা যায়! একসময় মেয়েটা সোজা হল। আমি তৃতীয় বারের মত মেয়েটার নুনুতে হাত দিলাম। এবার আমার অবাক হওয়ার পালা। সালোয়ারের নুনুর সাথে লেগে থাকা অংশটা একটু ভেজাভেজা। শরীরের সবচেয়ে গোপন আর লজ্জার জায়গায় একটি ছেলের হাতের স্পর্শ! অনিচ্ছা সত্ত্বেও নিতান্ত জৈবিক কারনে মেয়েটার নুনুর মুখে কামনার মধু চলে এসেছে। এবার মেয়েটা কোমরটা একটু সরিয়ে নিলেও আগের মত চমকে উঠলনা। হয়ত সে ধরেই নিয়েছিল যে আমি আবারও হাত দিব। আমার সাহস আরও বেড়ে গেল। এবার আর আমি হাত সরিয়ে না নিয়ে নুনু স্পর্শ করে থাকলাম। কোন উপায় না দেখে বোধহয় হাল ছেড়ে দিয়ে মেয়েটা সোজা হয়ে দাঁড়াল। এবার আমি মেয়েটার নুনুর চেরার উপর দিয়ে হাত বুলাতে লাগলাম। মেয়েটার দিকে তাকিয়ে দেখি লজ্জা বা অন্য কোন কারনে মেয়েটা অন্য দিকে তাকিয়ে আছে। আমি আমার তর্জনীটা সালোয়ারের উপর দিয়ে চেরার উপর থেকে নিচে, নিচে থেকে উপরে আলতো করে বুলাতে লাগলাম। কিছুক্ষন বুলানোর পর চেরাটার উপরের অংশে শক্ত কিছু অনুভুত হল। বুঝতে পারলাম যে যৌন উত্তেজনায় মেয়েটার ভগাঙ্কুর দাঁড়িয়ে গেছে। আমি এবার ভগাঙ্কুরের উপরে ও চারপাশে আলতো করে আঙ্গুল ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে মেয়েটার নুনু খেঁচতে লাগলাম। মেয়েটার দিকে তাকিয়ে দেখি সে তার মাথার ওড়নার এক প্রান্ত বাম হাত দিয়ে মুখে চাপা দিয়ে আছে। হয়তো সে তার মুখের অভিব্যক্তি গোপন করার জন্যই এ কাজ করছে। মিনিট খানেক খেচাঁর পর মেয়েটা তার পাছা আর উরুর মাংশপেশী টানটান করে ফেলল। হঠাৎ এক ঝটকায় কোমর বাকাঁ করে নুনুটা হাত থেকে সরিয়ে নিল। হয়ত নুনুর ভিতর অজানা এক অনুভুতি, যে অনুভুতিটা ধীরে ধীরে শক্তিশালী হয়ে উঠছিল, যা চলতে থাকলে সে বুঝতে পারছিল যে তার কিছু একটা হয়ে যাবে, যা হবে সেটা ভাল না মন্দ এই অজানা আশঙ্কায় সে নুনুটা সরিয়ে নিল। কিন্তু মামারা, যতই অজানা হোক অনুভুতিটা তো আরামের। তাই অনুভুতিটা চলে যাওয়ার পর মেয়েটা নিজ থেকেই তার নুনুটা আমার হাতের সাথে স্পর্শ করালো। আমি আবারও তার নুনুটা খেঁচা শুরু করলাম। মিনিট খানেক পর আবারও সে তার পাছা আর উরুর মাংশপেশী টানটান করে ফেলল। কিন্তু এবার আর নুনু সরাল না। আর পাঁচ ছয়টা খেঁচা দেবার পর মেয়েটা তার ডান হাতটা দিয়ে রেলিং এর উপর রাখা আমার বাম হাতটা খামচেঁ ধরে গুঙিয়ে উঠল আর তার কোমরটা চার পাঁচ বার ঝাঁকি খেল। প্রতিটা ঝাঁকির তালে তালে পিচিক্* পিচিক্* করে চার পাঁচ দফায় সে তার সব মাল সালোয়ারের ভিতর আউট করে দিল। এটা বোধহয় তার জীবনের প্রথম মাল স্খলন। কারন চটচটে আঠাল তরলে তার সালোয়ার উরু পর্যন্ত ভিজে গেল। প্রথম বার না হলে কোন মেয়ের এত ফ্যাদা বের হওয়ার কথা না। মেয়েটার বয়স ১৬-১৭ বছর হবে। ১২ বছর বয়সে যদি সে বয়ঃপ্রাপ্ত হয় তবে ৪-৫ বছর ধরে তিলতিল করে জমানো মাল............ সুতরাং বুঝতেই পারতেছেন মামারা।

একে তো মাল আউট হওয়ার পর খুব দূর্বল লাগে তার উপর লোকজন মেয়েটার ভেজা সালোয়ার দেখে ফেলতে পারে তাই আমি উঠে মেয়েটাকে বসিয়ে দিলাম। মেয়েটা সামনের রেলিং এ মাথা দিয়ে মাথা নিচু করে বসে থাকল। এদিকে আমার ধোনের অবস্থা খুব খারাপ। টনটন করতেছে। হাত মেয়েটার চটচটে আঠাল মালে মাখামাখি। যদি আরও কিছুক্ষন মেয়েটার নুনু ছানাছানি করতাম বা মেয়েটার মাল আঊট হতে আর একটু দেরি হত তাহলে নিশ্চিত মেয়েটার আগেই আমার মাল আউট হয়ে যেত। এদিকে মেয়েটার মাথা উঠাবার নাম নাই। মাঝে একবার কোথায় নামবে জিজ্ঞাসা করার পরও উত্তর দেয় নাই। বাস তাজমহল রোডের শেষ স্টপেজে এসে গেছে। যাত্রীরা সবাই একে একে নেমে গেল। তবু মেয়েটার মাথা উঠাবার নাম নাই। আমি দুশ্চিন্তায় পড়ে গেলাম। কি হল মেয়েটার? বাসের কন্ডাক্টর কৌতুহলী দৃষ্টিতে এদিকে তাকায় আছে। ............ (চলবে)
avatar
windows-xp

Posts : 32
Join date : 2010-02-05

View user profile http://www.dallywood-girl.blogspot.com

Back to top Go down

View previous topic View next topic Back to top

- Similar topics

 
Permissions in this forum:
You cannot reply to topics in this forum